কিভাবে মোবাইল(Mobile) এবং কম্পিউটার(Computer) হ্যাক হয়???

আজকে জানবো কিভাবে আপনার মোবাইল এবং কম্পিউটার হ্যাক হয়ে থাকে

কি লগার এবং ক্র্যাক সফটওয়্যার এর মাধ্যমে সবচাইতে বেশি মোবাইল এবং কম্পিউটার হ্যাক হয়ে থাকে

কি লগারঃ হ্যাকিং এর আরেকটি জনপ্রিয় পদ্ধতির নাম হচ্ছে কি লগার ।এটি একটি নজরদারি প্রযুক্তি। এটি কম্পিউটারের প্রতিটি কি স্ট্রোক করে রাখে এবং হ্যাকারের কাছে তা পাঠিয়ে দেয়। কোনো কোনো কি লগার ত নিদিষ্ট সময় পর পর স্কিন শট নিয়ে তা হ্যাকারের কাছে পাঠায়। কি লগার বানানোর উদ্দেশ্য ছিলো ভালো কাছে ব্যবহার করা।
যেমন অফিসের লোকজনের প্রতি নজরদারি করা,, ছেলে মেয়েদের উপর নজরদারি করা।
কিন্তু এটি ভালো কাছে ব্যবহারের পাশাপাশি খারাপ কাছে ও ব্যবহার করা হয়

কি লগার দুই ধরনের হয়, যেমনঃ হাডওয়্যার,, সফটওয়্যার,
, হাডওয়্যার কি লগার পেনড্রাইভের মতো। এটি আলাদা করে ইনস্টল করার প্র‍য়োজন হয় নাহ।
সসফটওয়্যার ভিত্তিক কি- লগার কম্পিউটার এ ইনস্টল করতে হয়। বিভিন্ন ধরনের কি-লগার আছে, যেমনঃ র‍্যাট,,পাইথন কি লগার, বি লগার ইত্যাদি

বিভিন্ন পোগ্রামিং ভাষা ব্যবহার করে কি লগার বানানো হয়,, যেমনঃ সি ,সি++,, জাভাস্ক্রিপ্ট,, পাইথন,

বাচার উপাইঃ যে কোনো ধরনের লিংক,এটাচমেন্ট কিছু ওপের করার আগে নিশ্চিত হতে হবে যে এটা নিরাপদ কি নাহ। এন্টিভাইরাস সবসময় আপডেট রাখতে হবে।

ক্র্যাক সফটওয়্যার ব্যবহার : আপনারা যারা পাইরেসি সফটওয়্যার ব্যবহার করেন সেগুলোর মাধ্যমে আপনার মোবাইল অথবা কম্পিউটার হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি ।
কেননা এগুলোর মধ্যে হ্যাকাররা তারা তাদের নিজস্ব ম্যালওয়ার ঢুকিয়ে দিতে পারে ।
তাই চেষ্টা করবেন যথাসম্ভব পাইরেসি সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার না করার ।
অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের ক্ষেত্রে গুগল প্লে স্টোর ছাড়া অন্য কোন জায়গা থেকে অ্যাপস ইন্সটল করবেন না
এগুলো ছাড়াও আরো বিভিন্ন উপায়ে হ্যাকিং সম্ভব পরবর্তীতে কিভাবে ওয়েবসাইট হ্যাকিং করা সম্ভব এগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব

                                             আরো জানুন

হ্যাকারওয়ান কি(HackerOne)

What is Kali Linux? কালি লিনাক্স কি?

What is virtualization? Vmware কি ভাবে ইন্সটল করবো?

2 thoughts on “কিভাবে মোবাইল(Mobile) এবং কম্পিউটার(Computer) হ্যাক হয়???”

Leave a Comment